মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী

সিরাজগঞ্জের কৃতী পুরুষ মজলুম জননেতা মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার সয়াধানগড়া গ্রামে ১৮৮৭ সালে ১৮ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। পিতামাতাকে বাল্যকালেই তিনি তিনি হারান। অনেক প্রতিকূল এবং নানা ঘাত-প্রতিঘাত অবস্থার মধ্যে যৌবনে পদার্পন করার পর তিনি ব্রিটিশবিরোধী বিপ্লবী সংগঠন ‘অনুশীলন’ দলের প্রাথমিক সদস্য হন। নিজের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য তিনি আসামে চলে যান। সারাজীবন কৃষক-শ্রমিক-মেহনতী মানুষের পক্ষে আপোষহীনভাবে সংগ্রাম করতে গিয়ে মওলানা ভাসানী বহু জেল, জুলুম ও নির্যাতন ভোগ করেছেন। তিনি বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। পররাষ্ট্রনীতির প্রশ্নে মতপার্থক্যের কারণে ১৯৫৬ সালে ঐতিহাসিক কাগমারী (টাঙ্গাইলের সন্তোষে) সম্মেলনে তিনি আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করেন এবং ন্যাপ নামক অন্য একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। পাক-ভারত উপমহাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে মওলানা ভাসানী মজলুম জননেতা হিসেবে সুপরিচিত ছিলেন। মওলানা ভাসানী প্রগতিশীল, মানবতাবাদী ও মুক্ত চিন্তা-চেতনায় সমৃদ্ধ বিরল ব্যক্তিত্বের অধিকারী ছিলেন। বাংলাদেশের সিরাজগঞ্জের তেজোদীপ্ত প্রাণপুরুষ জননেতা মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ১৯৭৬ সালে ইন্তেকাল করেন।

Related posts

Leave a Comment